টাইম ট্রাভেল কি সম্ভব ? পদার্থবিজ্ঞানের আলোকে ব্যাখ্যা । YMC
Thu. Jul 7th, 2022
টাইম ট্রাভেল কি সম্ভব ? পদার্থবিজ্ঞানের আলোকে ব্যাখ্যা । YMC

টাইম ট্রাভেল কি সম্ভব ? উত্তর হচ্ছে , হ্যাঁ কিন্তু অতীতের দিকে টাইম ট্রাভেল সম্ভব কিনা তা কোয়ান্টাম গ্রাভিটি তত্ত্ব আবিষ্কারের পর বোঝা যাবে (বিজ্ঞান বর্তমান এটা নিয়ে কাজ করছে) । টাইম ট্রাভেল বলতে বুঝায় বর্তমান থেকে অতীত বা বর্তমান থেকে ভবিষ্যতে পরিভ্রমণ করা ।

এই লেখাতে আপনি জানতে পারবেন

  • টাইম ভবিষতের দিকে ট্রাভেল এবং অতীতের দিকে ট্রাভেল সম্পৰ্কে জানতে পারবেন।
  • স্থানকাল মাত্রাটা কি?
  • ব্ল্যাক হোলের মাধ্যমে টাইম ট্র্যাভেল কিবনে ঘটে।
  • কিভাবে ক্ষুদ্র বিবরে টাইম ট্রাভেল হয় ?
  • আলোর বেগে কোনো নভোযানে ভ্রমণ টাইম ট্রাভেল ঘটে।
  • আদৌ টাইম ট্রাভেল কি সম্ভব ?
  • আমরা সময় জিনিসটাকে অনেক সাধারন বিষয় মনে করি কিন্তু সময় এত সাধারণ বিষয় নয় । আমরা সবাই দৈর্ঘ্য , প্রস্থ ও উচ্চতা এই তিনটে মাত্রা সম্পর্কে জানি । কোনো বস্তুর অবস্থান নির্ণয় করার জন্য আমাদেরকে এই তিনটি মাত্রা দিয়ে নির্ণয় করতে হয় । এই তিনটি মাত্রা ছাড়া আরো মাত্রা রয়েছে । চতুর্থ মাত্রাটি হলো স্থান-কাল । অর্থাৎ কোনো কিছুর অবস্থান নির্ণয় করার জন্য শুধু তিনটি মাত্রা দিয়ে নয় চারটে মাত্রা দিয়ে অবস্থান নির্ণয় করতে হবে । আম গাছের একটি ডালে আম রয়েছে । আজকে আমটি আছে কিন্তু আগামীকাল নাও থাকতে পারে । মূলত একারনেই কোনো বস্তুর অবস্থান নির্ণয় করার জন্য আমাদেরকে সময় যোগ করে নিতে হবে । 

    X অক্ষ বরাবর স্থান পরিবর্তন করলে আপনি সামনে বা পিছনে যেতে পারবেন । ঠিক তেমনি ভাবে সময়ের অক্ষ বরাবর চললে অতীত বা ভবিষ্যতে যাওয়া যাবে । আইনস্টাইনের আপেক্ষিক তত্ত্ব অনুযায়ী টাইম ট্রাভেল  সম্ভব । প্রত্যেক দর্শকের কাছে সময়ের পরিমাপ ভিন্ন ভিন্ন । পর্যবেক্ষকের কাছে সময় নির্ভর করবে তার গতিবেগের উপর । যখন কোনো পর্যবেক্ষক আলোর বেগ এর কাছাকাছি চলে তখন তার সময় স্থির থাকা কোনো দর্শকের সাপেক্ষে স্লো হয়ে যায় । অর্থাৎ স্থির থাকা দর্শকের সাপেক্ষে গতিশীল ব্যক্তি টাইম ট্রাভেল করেছে বলা যায়। পর্যবেক্ষকের সময় নির্ভর করবে তার গতিবেগ এর উপর । 

    টাইম ট্রাভেল কি সম্ভব ? পদার্থবিজ্ঞানের আলোকে ব্যাখ্যা । YMC

    গতিবেগ এবং সময় এর মধ্যকার সম্পর্ক , 

    \begin{array}{l} {t}\mathrm{{=}}\frac{{t}_{o}}{\sqrt{{1}\mathrm{{-}}\frac{{v}^{2}}{{c}^{2}}}} \end{array}

    কোন পর্যবেক্ষক  যদি আলোর বেগে ভ্রমণ করে তাহলে ভবিষ্যতে চলে যাবে কিন্তু সেটার জন্য কিছু সমস্যা রয়েছে । আমি নাচলাম , উঠান বাঁকা না হলে ভালো হয় । নাচার কারণে উঠান বাঁকা হলে কেমন হবে ? 

    সমস্যা হলো , আপনি কোনো নভোযানে চড়ে আলোর বেগের কাছাকাছি গেলে আপনার ভর বেড়ে m0 থেকে m হবে , ভর বৃদ্ধির সমীকরণটি হলো ,

    \begin{array}{l} {m}\mathrm{{=}}\frac{{m}_{o}}{\sqrt{{1}\mathrm{{-}}\frac{{v}^{2}}{{c}^{2}}}} \end{array}

    ভর বৃদ্ধির সূত্র অনুযায়ী আলোর বেগের কাছাকাছি গেলে ভর বেড়ে যায় । শুধু যে আপনার ভর বৃদ্ধি পাবে তা নয় আপনার নভোযানের ভরও বৃদ্ধি পাবে । ভর বৃদ্ধি পাওয়া মানে E =mc2 সূত্র অনুযায়ী শক্তি বৃদ্ধি পাওয়া । এখন নভোযান চালানোর জন্য জ্বালানি শক্তির প্রয়োজন । নভোযান আলোর বেগে চলতে হলে অসীম পরিমাণ শক্তির প্রয়োজন কিন্তু আমরা অসীম পরিমাণ শক্তি সংগ্রহ করতে পারব না । তাই কোনো ভর বিশিষ্ঠ কণাকে অবিরাম ত্বরণ দিয়ে আলোর বেগের সমান করা যাবে না । মোট কথা কোনো কণা আলোর বেগের কাছাকাছি বেগে যেতে পারবে না । কেউ কেউ দাবি করে ভবিষ্যতে হয়তো বিজ্ঞানীরা এমন কোনো যন্ত্র আবিস্কার করতে সক্ষম হবে , যা আলোর বেগের কাছাকাছি যেতে পারবে । আবার কেউ এই দাবির বিপক্ষে অবস্থান করে । 

    3

    ব্ল্যাক হোল : ব্ল্যাক হোল দিয়ে টাইম ট্রাভেল কি সম্ভব ?  ব্ল্যাক হোলের মহাকর্ষ প্রভাবের কারণে সময় স্লো হয়ে যায় । আপনি একটি নভোযানে চড়ে ব্ল্যাক হোলের চারপাশে অবস্থান করলে পৃথিবীতে থাকা মানুষের সাপেক্ষে আপনার সময় স্লো হয়ে যাবে। 

    টাইম ট্রাভেল কি সম্ভব ? পদার্থবিজ্ঞানের আলোকে ব্যাখ্যা । YMC

    মহাকর্ষ প্রভাবের উপর নির্ভর করবে আপনার সময় কেমন হবে । আমরা জানি , গ্রহের চারপাশে কৃত্রিম উপগ্রহের আবর্তন বেগ , \begin{array}{l} {v}\mathrm{{=}}\sqrt{gR} \end{array}

    সমীকরণের 1 নং এ v এর মান বসিয়ে পাই ,

    \begin{array}{l} {T}\mathrm{{=}}\frac{{T}_{o}}{\sqrt{{1}\mathrm{{-}}\frac{{v}^{2}}{{c}^{2}}}} \end{array}

    এই সমীকরণ থেকে দেখা যায় মহাকর্ষ বলের উপর নির্ভর করে ভিন্ন ভিন্ন পর্যবেক্ষকের কাছে ভিন্ন ভিন্ন সময় হবে। পৃথিবীর সবার কাছে সময়ের পরিমাপন একই । কারণ পৃথিবীতে অবস্থানরত সবার অভিকর্ষ ত্বরণ একই । কিন্তু যারা পাহাড়ের উপরে অবস্থান করে তাদের সময় এবং পাহাড়ের নীচের মানুষের কাছে সময়ের পরিমাপ ভিন্ন । 1962 সালে এটা প্রমান করা হয় ।  উপরের সমীকরণের মাধ্যমে দেখা যায় আপনি ব্ল্যাক হোলের চারপাশে আবর্তন করলে আপনার সময় স্লো হবে । আলোর বেগের সমান বেগে কোনো নভোযানে চড়ে যেখানে গেলে সময় লাগবে এক হাজার বছর, গড়ে 60-70 বছর বেঁচে থাকা মানুষের কাছে এটা অসম্ভব ।কোনো উপায় ব্ল্যাক হোলে গেলেন এবং ব্ল্যাক হোলে লাফ দিলেন তখন আপনি মহাকর্ষের আকর্ষণে ছিন্ন বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবেন । (পরবর্তীতে ব্ল্যাক হোল সম্পর্কে লেখবো ইনশাআল্লাহ্ , আমাদের সাথে থাকুন )

    হতাশ হওয়ার কিছু নেই । এতো দূরে যাওয়ার কোনো প্রয়োজন নেই , হয়তো ব্ল্যাক হোল আমাদের আসে পাশেই আছে । থাকলেও সেটা আমরা দেখতে পারবো না ।মহাবিস্ফোরনের  সময়  প্রচন্ড চাপের ফলে ব্ল্যাক হোল তৈরি হতে পারে । হতে পারে আমাদের এই সৌরজগতে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ব্ল্যাক হোল আছে , এটা স্টিফেন হকিং এর কথা। মহাবিশ্বের বয়স যখন 10^-20 second তখন মহাবিশ্বে প্রচুর চাপ ছিল । তাই তখন ব্ল্যাকহোল সৃষ্টি হতে পারে ।  1 কেজি একটিলোহাকে প্রচণ্ড চাপ দিলে হাইড্রোজেন সমান  ব্ল্যাকহোলে পরিণত হবে । হয়তো কোনোদিন ভবিষ্যতে বিজ্ঞানীরা কোনো বস্তুকে অতিরিক্ত চাপ দিয়ে ব্লাকহোলে পরিণত করতে পারবে । সেটা দিয়ে টাইম ট্রাভেল করা যাবে ?

    ক্ষুদ্র বিবর :

    ক্ষুদ্র বিবর দিয়ে টাইম ট্রাভেল কি সম্ভব ? ব্ল্যাক হোলে লাফ দিলে তার মৃত্যু অনিবার্য । স্টিফেন হকিং এর এই ব্যাপারে আপত্তি ছিলো , তিনি মনে করতেন তথ্য সম্পূর্ণ হারিয়ে যায় না সেটা হোয়াইট হোল দিয়ে বের হয় । হোয়াইট হোল হলো ব্ল্যাক হোলের উল্টো । ব্ল্যাক হোলের ভিতর দিয়ে যা প্রবেশ করে সেটা হোয়াইট  হোল দিয়ে বের হয়ে যায় । হোয়াইট হোল আর ব্ল্যাক হোলের মধ্যে  সংযোগ রাস্তা হলো ক্ষুদ্র বিবর । ক্ষুদ্র বিবর  ব্ল্যাক হোল এবং হোয়াইট হোলের মধ্যে যেমন সংযোগ তৈরি করে ঠিক তেমনি ভাবে এক মহাবিশ্ব থেকে অন্য মহাবিশ্বের বা শিশু  মহাবিশ্বের মধ্যে সংযোগ রাস্তা হলো  ক্ষুদ্র বিবর । ক্ষুদ্র বিবর দিয়ে অনেক সহজে টাইম ট্রাভেল করা যায় । এটা দিয়ে ভবিষ্যত ও অতীতে যাওয়া যায় ।

    টাইম ট্রাভেল কি সম্ভব ? পদার্থবিজ্ঞানের আলোকে ব্যাখ্যা । YMC

    আকাশে যে তারা দেখেন বর্তমান সেটা কিন্তু বর্তমানের তারা নয় । এটা হলো অতীতের তারা । আমাদের আকাশে যে তারা দেখা যায় এগুলো সব অতীতের তারা । আমাদের সবচেয়ে নিকটতম তারা হলো  প্রক্সিমা সেন্টাউরি 4.2 আলোকবর্ষ । অর্থাৎ সবচেয়ে নিকটতম তারা থেকে আলো আসতে সময় লাগে 4.2 বছর , এই তারা 4.2 বছর অতীতের তারা । আকাশের সব তারাই অতীতের । হয়তো এমন কোনো তারা আছে যার জ্বালানি ফুরিয়ে গিয়েছে , সেখানে তারা নেই । কিন্তু আমরা মনে করি তারাটি এখনো জ্বলছে ! মনে করুন আপনি  প্রক্সিমা সেন্টাউরিতে বসবাস করেন । আপনার তারার জ্বালানি শেষ হবে ঠিক সেই মুহুর্তের আগে আপনি ক্ষুদ্র বিবর দিয়ে পৃথিবীতে চলে আসলেন । ক্ষুদ্র বিবর দিয়ে দেখেছিলেন আপনার তারার মৃত্যু হয়ে গিয়েছে কিন্তু আপনি পৃথিবীতে আসার পর আপনি দেখবেন তারাটি এখনো জ্বলজ্বল করে জ্বলছে । আপনি 4.2 বছর তারাটি জ্বলতে দেখবেন , আপনি পৃথিবীতে বসে 4.2 বছর নিজের অতীত দেখতে পারবেন । ক্ষুদ্র বিবর থিওরিক্যাল , এখনো প্রমান হয়নি ,ভবিষতে প্রমাণ হতেও পারে ।   তবে এতো খুশি হবার কিছু নেই । কারণ ক্ষুদ্র বিবর লজ্জাবতী  ফুলের পাতার মতো । স্পর্শ করা মাত্র লজ্জাবতী পাতা চুপসে যায় ঠিক তেমনি ক্ষুদ্র বিবর খুবই ভঙ্গুর প্রকৃতির । আপনি ক্ষুদ্র বিবরে ঢুকলে শব্দ পেলে ভেঙে যাবে ।  কিন্তু এমন কোনো নভোযান নেই সেটার শব্দ হবে না । 

    আপনি 4.2 বছর নিজের অতীত দেখলেন । তাহলে কি অতীতে যাওয়া সম্ভব ? তখন এর উত্তরে চলে আসে গ্র্যান্ডফাদার প্যারাডক্স সহ নানান রকমের প্যারাডক্স , আর সে প্যারাডক্সের থেকে দেখা যায় যে টাইম ট্র্যাভেল করার পর আপনি আপনার নিজের অস্বিত্ব নষ্ট করে ফেলেন । প্যারাডক্স গুলো ভয়ানক এখন থেকে পড়ুন । এই সব প্যারাডক্স অনুযায়ী নিঃসন্দেহ বলা যেতে পারে অতীতে টাইম ট্র্যাভেল অসম্ভব ।

    অতীতের দিকে টাইম ট্রাভেল কি সম্ভব ?

    কিছু কিছু বিজ্ঞানীর মতামত অতীতের দিকে টাইম ট্রাভেলের পক্ষে, তাদের মতে অতীতে গিয়ে কোনো রকম পরিবর্তন করতে পারবে না । শুধুমাত্র দর্শকের মতো দেখতে হবে , অনেকটা ভিডিও করা দৃশ্যের মতো । এই যুক্তির সাথে আমিও এক মত । উপরের প‍্যারা থেকে বোঝা যায় যে ,প্রক্সিমা সেন্টাউরি থেকে আপনি যে কোনো উপায় আলোর আগে আসতে পারলে তো সেটা অতীত দেখতে পারছেন কিন্তু কোনো রকম পরিবর্তন ছাড়া । তবে বেশির ভাগ বিজ্ঞানী মনে করেন যে টাইম ট্রাভেল করে প্যারালাল মহাবিশ্বে চলে যায় । আর প্যারালাল মহাবিশ্বে আপনার মতো কোনো হুবহু আপনি রয়েছেন যা আপনার টুইন , সেখানে আপনি আপনার টুইনের দাদাকে খুন করলে আপনার অস্তিত্ব টিকে থাকে । তখন টাইম ট্র্যাভেল প্যারাডক্স কোনো রকম সমস্যা হয় না ।

    One thought on “টাইম ট্রাভেল কি সম্ভব ? পদার্থবিজ্ঞানের আলোকে ব্যাখ্যা । YMC”

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.